Others

করোনা আক্রান্তদের অর্ধেকের লক্ষণ প্রকাশ পায়নি, তারাই ছড়াচ্ছে বেশি!

করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ প্রাদুর্ভাবের মধ্যে অসাধারণ এক নজির স্থাপন করছে দ্বীপরাষ্ট্র আইসল্যান্ড। দেশটির তাদের সব নাগরিকের করোনা পরীক্ষা করবে। কাজটি তারা বেশ জোরেশোরেই চালিয়ে যাচ্ছে। আর এই কাজ করতে গিয়ে তারা পেয়েছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ব্যাপকহারে পরীক্ষার করোনার প্রাদুর্ভাব রোধের চাবিকাঠি হতে পারে। এর মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আসল চিত্রটা ধরা সম্ভব। ৩৬ লাখ জনসংখ্যার দ্বীপ রাষ্ট্র আইসল্যান্ড ঠিক সেই কাজটিই করছে।

মঙ্গলবার পর্যন্ত আইসল্যান্ড তাদের ১৭ হাজার ৯০০ নাগরিকের পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে যা দেশটির মোট জনসংখ্যার প্রায় ৫ শতাংশ। যে সকল নাগরিকের শরীরে করোনার লক্ষণ প্রকাশ পেয়েছে কিংবা যারা অধিক ঝুঁকিপূর্ণ তাদের পরীক্ষা করছে দেশটির ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হসপিটাল। এর বাইরে দেশটির প্রায় অর্ধেক জনগণের করোনা পরীক্ষা করবে বায়োফার্মা কোম্পানি ডিকোড জেনেটিক্স। যেসকল নাগরিকের মধ্যে করোনার লক্ষণ প্রকাশ পায়নি কিংবা যারা কোয়ারেন্টাইনে নেই তাদের সবাইকে পরীক্ষা করছে ডিকোড জেনেটিকস।

আর এই কাজ করতে গিয়ে তারা যে ফলাফলটি পেয়েছে তা রীতিমতো বিস্ময়কর। ডিকোড এরিমধ্যে ৯ হাজারের বেশি মানুষের পরীক্ষা করেছে। এরমধ্যে ১ শতাংশেরও কম মানুষের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। আর আক্রান্তদের মধ্যে ৫০ শতাংশের মধ্যেই করোনার কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। ডিকোড কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা কেরি স্টেফানসন মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে যে সকল রোগীর লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে না কিংবা কম প্রকাশ পাচ্ছে তাদের মাধ্যমেই এটি বেশি ছড়াচ্ছে।

স্টেফানসন বলেন, আমরা যেহেতু সাধারণ মানুষকে পরীক্ষা করছি তাই এমন মানুষও পাচ্ছি যাদের কোনো লক্ষণ নেই কিন্তু করোনা ভাইরাস বহন করছেন। অর্থাৎ তাদের লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার আগে ধরা পড়ছে।

পরিসংখ্যান বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য মতে, বুধবার পর্যন্ত দেশটিতে ১ হাজার ১ হাজার ১৩৫ জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে। এরমধ্যে মারা গেছেন ২ জন।

এ জাতীয় আরো খবর জানতে ভিজিট করুন- ReaLBDnews.com

Source link

শেয়ার করুনঃ